চরিত্র নয়, গল্প নিয়ে চিন্তা করি

0
27

আব্বাস-এর পর ক্যাসিনো, এরপর তিতুমীর। একের পর এক ভিন্নধর্মী গল্প ও চরিত্রের মধ্য দিয়েই যেন নিজের অভিনয় দক্ষতার প্রমাণ দিচ্ছেন অভিনেতা নিরব হোসেন। শেষ করেছেন গত বছর শুরু হওয়া ক্যাসিনো ছবির কাজ। এবার তিতুমীর নামে একটি ছবিতে অভিনয় করতে চলেছেন। ঐতিহাসিক তিতুমীর চরিত্রটি নিয়েই মূলত এ ছবি। সেই চরিত্রটিকেই পর্দায় ফুটিয়ে তুলবেন নিরব। এরই মধ্যে প্রকাশ পেয়েছে ছবির ফার্স্ট লুক। ক্যাসিনো ও তিতুমীর ছবির টুকিটাকি নিয়ে টকিজের সঙ্গে কথা হয় তার। সাক্ষাত্কার নিয়েছেন রাইসা জান্নাত—

তিতুমীর ছবির শুটিং নিয়ে জানতে চাই

এপ্রিলের প্রথম দিকে ছবির শুটিং শুরুর পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু এখন দেশের যা পরিস্থিতি, তাতে এপ্রিলের শেষ দিকে হয়তো শুটিং শুরু হতে পারে। ছবির গল্পটিকে দুটি অংশে ভাগ করা হয়েছে। একটি অংশের শুটিং হয়তো এপ্রিলে করা হবে। আর বাকি অংশটির শুটিং জুলাই বা আগস্টের দিকে হতে পারে।

চরিত্রটির জন্য নিজেকে কীভাবে প্রস্তুত করছেন?

এ বিষয়ে এখনই তেমন কিছু বলতে চাই না। গল্পটিকে ধারণ করার জন্য যে রকম প্রস্তুতি নেয়া দরকার, তা নিচ্ছি। আগে বিনোদনের মাধ্যম হিসেবে টিভি চ্যানেল ছিল না। খেলাধুলাও তেমন ছিল না। তখন একটা খেলা ছিল সেটা হলো কুস্তি। তিতুমীর একজন কুস্তিগীর ছিলেন। একজন পালোয়ান হিসেবে তার চরিত্রটি ফুটিয়ে তোলার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছি।

তিতুমীর চরিত্রে অভিনয়ের বিষয়টি কতটা চ্যালেঞ্জিং মনে হচ্ছে?

অনেক বেশি চ্যালেঞ্জিং মনে হচ্ছে। ছবিতে অভিনয়ের জন্য যখন আমি চুক্তি স্বাক্ষর করি, তখন বেশ দুশ্চিন্তায় ছিলাম। যে চরিত্রে কাজ করতে যাচ্ছি, তা আমার জন্য কতটা কঠিন হবে—এসব নিয়ে বেশ ভেবেছি। পরে মনে হয়েছে, এ ধরনের চরিত্র, প্লট নিয়ে সবসময় কাজ হয় না। কাজেই এ রকম একটি গল্প ও চরিত্রের সঙ্গে নিজেকে সম্পৃক্ত করতে পারলে নিজেরই ভালো লাগবে।

ঐতিহাসিক একটি চরিত্রে অভিনয় করবেন, সেক্ষেত্রে কোনো ধরনের চাপ অনুভব হচ্ছে কী?

চাপ নেই। তবে টেনশন হচ্ছে। ঐতিহাসিক গল্পটি আসলে কতটুকু ফুটিয়ে তোলা যাবে। একটি দেশের মার্কেট অনুযায়ী ছবি নির্মাণ করা হয়ে থাকে। চলচ্চিত্র মানেই তো ফ্যান্টাসি। একটা রিয়ালিস্টিক বিষয়কে ফ্যান্টাসির পর্যায়ে নিয়ে গিয়ে ছবির একটি ফরমেট তৈরি করা—এ বিষয়টি খুব গুরুত্বপূর্ণ। আমরা যেভাবে একটি ছবির প্লট চিন্তা করি, সেভাবে হয়তো অর্থনৈতিক সংকট ও বাজারের কারণে করা সম্ভব হয়ে ওঠে না। চিন্তাটা আসলে এখানেই। তবে আমরা আমাদের সাধ্য অনুযায়ী গল্পটাকে ফুটিয়ে তোলার চেষ্টা করব।

তিতুমীরের জীবনের কোন অংশটুকু নিয়ে ছবিটি নির্মিত হচ্ছে।

ছবিটি তিতুমীরের বায়োপিক নয়। তিনি ইংরেজ, নীলকরদের নিপীড়নের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেছেন। তার জীবনের এই লড়াই, সংগ্রামের অংশটুকু ছবিতে থাকবে। মূলত ছবিতে একজন বিদ্রোহী তিতুমীরকে তুলে ধরা হবে।

এবার ক্যাসিনো  ছবির বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাই।

এ ছবির কাজ একদম শেষ। এখন সম্পাদনা চলছে। এরপর ডাবিংয়ের কাজ শুরু হবে। ছবিটি মুক্তি দেয়ার ক্ষেত্রে এখনো কোনো সময় নির্ধারণ করা হয়নি।

দেশের সমসাময়িক বিষয় ক্যাসিনো নিয়ে ছবির কাহিনী। ছবিতে কাজের অভিজ্ঞতা কেমন ছিল?

কাজের অভিজ্ঞতা দারুণ। ক্যাসিনোর বিষয়টিকে ক্যাসিনোর মতো করেই ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। যেভাবে দেখানো উচিত, সেভাবেই দেখানো হয়েছে। আমার মনে হয়েছে, দর্শকদের মধ্যে যারা কখনো ক্যাসিনোতে যাননি বা দেখেননি, ছবিটি দেখে সেই জায়গা সম্পর্কে তারা একটি ধারণা পাবেন। আশা করছি, ছবিটি সবার ভালো লাগবে।

তিতুমীর ছাড়াও নতুন কোনো ছবির কাজ হাতে আছে কি?

আমি সবসময় চেষ্টা করি, একটি কাজ ভালোভাবে শেষ করার পরই নতুন কাজে হাত দেয়ার। তিতুমীর ছবির ফার্স্ট লুক প্রকাশ পেয়েছে। এখন এ ছবির কাজটাই ধারাবাহিকভাবে করতে চাই।

একটি ছবিতে অভিনয়ের আগে চরিত্র বা গল্প—কোন বিষয়ে বেশি মনোযোগ দেয়া হয়?

চরিত্র নয়, আমি গল্প নিয়ে চিন্তা করি। গল্পটি আমার সঙ্গে কতটুকু যাবে। ভিন্ন ভিন্ন গল্পে কাজ করতে পছন্দ করি। আব্বাস নামে একটি ছবিতে অভিনয় করেছি। সেই গল্পটা একরকম ছিল। আবার ক্যাসিনো ছবির গল্প ছিল আরেক ধরনের। এখন তিতুমীর ছবিতে কাজ করব। এটাও ভিন্নধর্মী একটি প্লট। এরপর হয়তো আরো ভিন্নধর্মী কোনো গল্পের ছবিতে কাজ করব, যা আগে দর্শকরা দেখেননি।

সূত্র : বনিক বার্তা