সুন্দরগঞ্জে অপবাদে স্কুলছাত্রকে হাত-পা বেঁধে মধ্যযুগীয় কায়দায় নির্যাতন গ্রেফতার-২

0
70

ক্বারী মোঃ আবু জায়েদ খাঁন, সুন্দরগঞ্জ, গাইবান্ধা প্রতিনিধিঃ
গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় মধ্যযুগীয় কায়দায় ১৩ বছরের এক কিশোরকে গরু চুরির অপবাদে বাড়ি থেকে ঘুমন্ত অবস্থায় তুলে নিয়ে এসে হাত-পা বেঁধে নির্যাতন করা হয়েছে।
গত শুক্রবার (১০ জানুয়ারি) এ ঘটনা ঘটে। রোববার (১২ জানুয়ারি) রাতে কিশোরের বড় ভাই রফিক মিয়া নিজে বাদী হয়ে ১৪৩/৩৪২/৩২৩/৩০৭ ধারায় ঘটনার ঘটনার সঙ্গে অভিযুক্ত থাকায় তনুসহ ১৩ জনকে অভিযুক্ত করে সুন্দরগঞ্জ থানায় এ ঘটনায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। যার মামলা নং- ২৩/২০ তাং-১২/০১/২০ ইং। দায়েরকৃত ২ মামলার আসামি রানা মিয়া ও আইজল মিয়া কে সোমবার গ্রেফতার করে গাইবান্ধা জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। নির্যাতনের শিকার কিশোরের নাম রাফিকুল ইসলাম (১৩)। সে উপজেলার দহবন্দ ইউনিয়নের ধুমাইটারী গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে ও সুন্দরগঞ্জ কারিগরি স্কুল এন্ড কলেজে ৭ম শ্রেণীতে অধ্যয়ণরত।
এলাকাবাসী জানান, সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ধুমাইটারী গ্রামে শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে গরু চুরির ঘটনার সন্দেহে ঘটে রাফিকুলকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে যায় একই গ্রামের ফজলু, ইয়াজুল ও নাজমুল। তারা রাফিকুলকে গরু চুরির অপবাদ দিয়ে ফজলুর বাসায় সারারাত বেঁধে রাখে। পরদিন শনিবার সকাল ৯টায় রাফিকুলকে স্থানীয় আফসার প্রামানিকের বাসায় নিয়ে যায় এবং হাত-পা বেঁধে তার ওপর অমানবিক নির্যান চালায় তনু প্রামাণিক, তাজু প্রামাণিক, তুহিন প্রামাণিক, লেলিন প্রামাণিক, সাবু প্রামাণিক ও মুসা প্রামাণিক। নির্যাতনের বিভিন্ন ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে বিষটি সবার নজরে আসে। নির্যাতনের ফলে রাফিকুল অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে সুন্দরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয় ।
এ ঘটনায় সুন্দরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল্লাহিল জামান জানান, কিশোর নির্যাতনের ঘটনায় থানায় একটি মামলা দায়ের হয়েছে। এ ঘটনায় সব ধরনের আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে মামলা তদন্তকারি কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা এ প্রতিনিধিকে জানান, অন্য আসামিদের দ্রুত গ্রেফতারের জোর প্রচেষ্টা চলছে।