ফুঁসছে নারী সমাজ, দেশে দেশে বিক্ষোভ

0
16
TOPSHOT - Sudanese women march in Khartoum to mark International Day for Eliminating Violence against Women, in the first such rally held in the northeast African country in decades, on November 25, 2019. - Chanting "Freedom, peace, justice," the catchcry of the protest movement that led to autocrat Omar al-Bashir's ouster in April, the demonstrators took to the streets in the Burri district, a site of regular anti-Bashir protests earlier this year. (Photo by Ashraf SHAZLY / AFP)

নারীর প্রতি সহিংসতার বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠেছে বিশ্ব। দেশে দেশে অনুষ্ঠিত হয়েছে বিক্ষোভ-র‌্যালি। বিক্ষোভ-র‌্যালিতে অংশ নিয়েছে লাখ লাখ নারী-পুরুষ। নারী নির্যাতনসহ সব ধরনের নিপীড়নের বিরুদ্ধে নিন্দা জানায় তারা। সেইসঙ্গে অবিলম্বে নারী নির্যাতন বন্ধে কার্যকর ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানায়।

ফ্রান্সে নারীর বিরুদ্ধে সংঘটিত পারিবারিক সহিংসতা বন্ধে জোরালো পদক্ষেপ নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে দেশটির সরকার। এখন থেকে ডাক্তার ও চিকিৎসকদের জন্য নির্যাতনের শিকার নারীর তথ্যপ্রাপ্তিকে আরও সহজ করবে দেশটির প্রশাসন। খবর আলজাজিরার।

সোমবার আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবস উপলক্ষে আফ্রিকার গুয়েতেমালা থেকে ইউরোপের রাশিয়া, সুদান থেকে তুরস্ক পর্যন্ত দেশে দেশে র‌্যালি ও সমাবেশ করেছে নারী নির্যাতনবিরোধী বিক্ষোভকারীরা।

নারীর সুরক্ষায় আইন করতে পুতিন সরকারের ব্যর্থতা তুলে ধরে এদিন মস্কোর রাস্তায় বিশাল প্রতিবাদ র‌্যালি বের করে রুশ নারীরা। রাজধানী খার্তুমে জড়ো হয়ে স্বাধীনতা, শান্তি ও ন্যায়বিচার চেয়ে স্লোগান দেয় সুদানের নারীরা।

এছাড়া বড় বিক্ষোভ হয়েছে স্পেনের মাদ্রিদ, মেক্সিকোর রাজধানী মেক্সিকো সিটি, তুরস্কের ইস্তাম্বুল, দক্ষিণ আফ্রিকার রাজধানী শহর কেপটাউন ও জোহানেসবার্গ, ফ্রান্সের প্যারিস ও ন্যানতেস, বুলগেরিয়ার সোফিয়া, পর্তুগালের লিসবন, আর্জেন্টিনার বুয়েন্স আয়ার্স, চিলির সান্টিয়াগো ও কলম্বিয়ার বোগোটার মতো বড় শহরগুলোতে। বিশ্বে ধর্ষণ ও যৌন সহিংসতা মহামারি রূপ নিয়েছে।

প্রতিনিয়ত খুনের শিকার হচ্ছে নারী ও কিশোরী। জাতিসংঘের পরিসংখ্যান মতে, ২০১৭ সালে বিশ্বজুড়ে ৮৭ হাজার নারীকে হত্যা করা হয়েছে।

কিন্তু অপরাধীদের বিচারের আওতায় এনে শাস্তি নিশ্চিত করতে পুরোপুরি ব্যর্থতার পরিচয় দিচ্ছে বিশ্বের সরকার ও প্রশাসনগুলো। নারীর বিরুদ্ধে সহিংসতাকে ‘নারীহত্যা’ অভিহিত করে এর বিরুদ্ধে গত সপ্তাহেই প্রথম বিক্ষোভে নামে ফরাসি নারীরা। তারই ধারাবাহিকতায় সোমবার আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ দিবসে বিশ্বের নানা প্রান্তে র‌্যালি-সমাবেশ।

কিন্তু নারীদের এই শান্তিপূর্ণ র‌্যালিতে বাধা দেয়া হয়েছে। এএফপি জানিয়েছে, ইস্তাম্বুলের রাস্তায় বিক্ষোভ-র‌্যালি নিয়ে বের হয় প্রায় ২ হাজার তুর্কি নারী। কিন্তু বিক্ষোভকারীদের পথ আটকে দেয় দাঙ্গা পুলিশ। এমনকি বিক্ষোভকারীদের সরিয়ে দিতে টিয়ার গ্যাস ও রাবার বুলেট ছোড়ে নিরাপত্তা বাহিনী।